Close

চাকরির সাক্ষাতকারে সফল হওয়ার প্রস্তুতি

সাক্ষাৎকার, যার মাধ্যমে নিয়োগকর্তা আপনার ব্যক্তিত্ব, আগ্রহ, আপনার জীবনের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য জানতে পারেন, আপনি আর আপনার দক্ষতা তখন আর কোনও কাগজে সীমাবদ্ধ থাকে না। নিয়োগকর্তার সামনে নিজেকে দক্ষভাবে তুলে ধরার একটি অনন্য সুযোগ হয়ে আসে সাক্ষাৎকার। মূলত এটিই আপনার অন্যতম একটি সুযোগ নিজেকে নিয়োগকর্তার সামনে সরাসরি উপস্থাপন করার যার মাধ্যমে আপনি নিদিষ্ট উদাহরণের সাহায্যে নিয়োগকর্তাকে বোঝানোর সুযোগ পান কেন আপনি সংশ্লিষ্ট পদের জন্য যোগ্য। অন্যদিকে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে আপনাকে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে যাচাই করার সুযোগ পান নিয়োগকর্তা। তাই সাক্ষাতকারে নিজেকে সঠিক ভাবে নিজের মত করে উপস্থাপন করতে না পারলে আপনার মেধা থাকা সত্ত্বেও তা ব্যর্থতায় পর্যবসিত হবার সম্ভাবনা থাকে। আর নিজেকে সঠিক ভাবে এবং সফলভাবে উপস্থাপন করার জন্য একটি ভালো প্রস্তুতির গুরুত্ব অনস্বীকার্য। তাই আসুন জেনে নেই কিভাবে নিবেন একটি সফল সাক্ষাৎকারের প্রস্তুতি।


সাক্ষাতকার কেন?

একটি ভালো প্রস্তুতি তখনি সম্ভব যখন আপনি জানবেন কেন প্রস্তুতি নিচ্ছেন , কিসের জন্য নিচ্ছেন এবং যার সামনে নিজেকে উপস্থাপন করচ্ছেন তার উদ্দেশ কি? কেন তিনি আপনার সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন।এই বিষয়গুলো যদি আপনার জানা থাকে তাহলে সাক্ষাৎকারের প্রস্তুতি নেয়াও যেমন সহজ হয় ঠিক তেমনি নিজেকে সাবলীল ও দক্ষভাবে উপস্থাপন করাও সহজ হয়।তাহলে আসুন জেনে নেই নিয়োগকর্তা কেন সাক্ষাতকার নেন।চাকরি প্রার্থীর সাথে সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যমে চাকরিদাতা জানতে চান প্রার্থী

  • নিজের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য সক্ষমতা আর দুর্বলতা সম্পর্কে সম্যক ধারনা আছে কিনা
  • সাক্ষাৎকারকৃত পদটির সম্পর্কে প্রার্থীর ধারনা আছে কিনা
  • দক্ষতা, যোগ্যতা প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য পূরণে প্রার্থী সহায়ক কিনা কিংবা প্রার্থী তা প্রমাণ করতে সক্ষম কিনা
  • আত্মবিশ্বাসী কিনা
  • পূর্ব অভিজ্ঞতা আর সুনির্দিষ্ট প্রমাণের মাধ্যমে নিজের সক্ষমতার কথা বলতে পারেন কিনা
  • সংশ্লিষ্ট পদের জন্য যোগ্য কিনা

সম্পূর্ণ সাক্ষাৎকার জুড়ে এই প্রশ্নেরই উত্তর নিয়োগকর্তারা খুঁজে থাকেন, তাই আপনার যোগ্যতা ও দক্ষতার বর্ণনার মাধ্যমে তাদের কে বুঝাতে হবে কেন আপনি নিজেকে পদটির জন্য উপযুক্ত মনে করেন।



চাকরির সাক্ষাতকারে সফল হওয়ার তিনটি পূর্বশর্ত

১. ভয়কে জয় করুন

ভয়কে জয় করুন। আপনার মনের ভেতরের অহেতুক ভয়টিকে যদি জয় করতে না পারেন তাহলে সে কখনোই আপনাকে জয়ী হতে দেবে না। শত যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও দেখবেন আপনি হেরে যাচ্ছেন। কারণ ভয় আপনাকে হারিয়ে দিচ্ছে। আপনাকে আটকে ধরে রাখছে অহেতুক দুশ্চিন্তার বেড়াজালে। তাই ভয় নয়,ভয়কে জয় করুন। নিজের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করুন।নিজেকে বলুন আপনি পারবেন।খারাপ হলে আপনি চাকরিটা পাবেন না,এর বেশি কিছু নয়। অহেতুক ভয়কে দূর করার জন্য নিজেকে তিনটি কথা বলুন

  • আপনি কোন বাঘের খাঁচায় পড়তে যাচ্ছেন না
  • পৃথিবীর সবাই সবকিছু জানে না , এমন অনেক কিছুই আছে যা আপনি জানবেন কিন্তু চাকরিদাতা জানবেন না
  • আপনার হারানোর কিছু নেই, হয় আপনি জিতবেন না হয় আপনি শিখবেন

এছাড়াও সাক্ষাতকারের দিন ভয় কাটানোর জন্য ১০ মিনিট পূর্বে সাক্ষাতকারের স্থানে উপস্থিত হন, গলা শুকিয়ে আসলে পিওনের কাছ থেকে পানি খেয়ে নিতে পারেন সাক্ষাৎকার কক্ষে প্রবেশ করার পূর্বেই, কোনোভাবেই নিয়োগকর্তাদের কাছে পানি খেতে যাবেন না, স্নায়বিক দুর্বলতা কাটানোর জন্য বার বার দীর্ঘ নিশ্বাস নিন, এতে আপনি ভয় কাটিয়ে অনেক স্বাভাবিক ও সাবলীল হয়ে সাক্ষাৎকারে প্রবেশ করতে পারবেন। মনে রাখবেন, ভয় পেয়েছেন তো হেরেছেন, তাই ভয়কে জয় করুন সাফল্য আপনারই।


২. অনুশীলন অনুশীলন আর অনুশীলন

অনুশীলন,অনুশীলন আর অনুশীলন, একটি ভালো সাক্ষাৎকারের জন্য অনুশীলনের গুরুত্ব অনস্বীকার্য, তাই অনুশীলন করুন, সাক্ষাৎকারে যাবার পূর্বে যতটুকু অনুশীলন করা সম্ভব, নিজেকে যত ভালো করে তৈরি করবেন সাক্ষাৎকারে ততই সফলতার দিকে এগিয়ে যাবেন। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে অনুশীলন করুন কিভাবে আপনি কথা বলবেন, আপনার অভিব্যক্তি গুলো ভালো করে লক্ষ্য করুন, দেখুন আপনি নিজেকে সন্তুষ্ট করতে পারচ্ছেন কিনা, আপনার চোখে যদি কোনো ভুল ধরা পরে তা ঠিক করার চেষ্টা করুন।তারপর আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আবারও ছায়া সাক্ষাৎকার দিন, এই অনুশীলনটি আপনার ভেতরকার জড়তাগুলোকে ভেঙ্গে দিবে ফলে মূল সাক্ষাৎকারের সময় আপনি আরো সাবলীল ভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারবেন।আপনার অনুশীলনটিকে আরো একটু মাত্রা দিতে আপনার বন্ধুদের সাহায্য নিতে পারেন,তাদের সাহায্যে একটি ছায়া সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা করুন, জিজ্ঞাসা করুন আপনার অভিব্যক্তি,চোখের দৃষ্টির মাঝে কোনো স্নায়বিক দুর্বলতা প্রকাশ পেয়েছে কিনা, কেননা আপনার কথা দিয়ে আপনি আত্মবিশ্বাসের ছাপ ফুটিয়ে তুলতে পারলেও তা যদি আপনার অভিব্যক্তিতে প্রকাশ না পায় তাহলে তা নিয়োগকর্তাদের মাঝে বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠবে না। প্রস্তুতিতে আরো একটু মাত্রা যোগ করতে আপনার অভিব্যক্তি গুলোকে ভিডিও করতে পারেন, আপনি নিজেও দেখে নিন কোথায় কোথায় ভুল হচ্ছে, অন্যদের জিজ্ঞাসা করুন, তাদের মতামত নিন এবং সেই অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করুন।মনে রাখবেন একটি ভালো প্রস্তুতিই একটি ভালো সাক্ষাৎকারের পথ সুগম করে দেয়।


৩. দিবা স্বপ্ন নয়

কখনোই ভাবতে যাবেন না একটি সাক্ষাৎকারের মাধ্যমেই আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত চাকরিটি পেয়ে যাবেন, ভাবতে হবে এটা সূচনা মাত্র, সাক্ষাৎকার যেমনি হোক না কেন ভাবুন আপনি দুই ভাবেই সফল হবেন, হয় চাকরিটি পাবেন না হয় নতুন কিছু শিখবেন যা কাজে লাগিয়ে আপনি পরবর্তী সাক্ষাৎকারে ভালো করবেন। রে দেয়।


সাক্ষাৎকারের আগের দিন করণীয়

একটি সফল সাক্ষাৎকারের জন্য প্রয়োজন একটি ভালো প্রস্তুতি, তাহলে আসুন জেনে নেই কিভাবে নিবেন একটি ভালো প্রস্তুতি;

  • প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে যত বেশি সম্ভব তথ্য সংগ্রহ করুন , মনে রাখবেন এই সকল তথ্য আপনার সাক্ষাৎকারটিকে সফলতার দিকে নিয়ে যাবে, তাই জানুন,প্রতিষ্ঠানের খুঁটি নাটি সম্পর্কে, তাদের প্রতিযোগী কারা, বাজারে তাদের অবস্থান কেমন , তাদের কর্ম পরিবেশ ইত্যাদি। আপনার সংগৃহীত মূল্যবান তথ্য সাক্ষাৎকারের দিন আপনাকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে এবং নিয়োগ কর্তারা বুঝবেন আপনি এই পদের জন্য কাজ করতে ইচ্ছুক ফলে নিয়োগকর্তার আপনার প্রতি একটি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হবে।
  • আপনার নিজের সম্পর্কে কি বলবেন তা আগে থেকে ঠিক করে নিন , খেয়াল রাখবেন তা যাতে ২ থেকে ৩ মিনিটেই বলা যায়, যাতে আপনাকে যখন জিজ্ঞাসা করা হবে আপনার সম্পর্কে বলুন তা যেন আপনি সহজ ও সাবলীল ভাষায় বলে দিতে পারেন, তবে লক্ষ্য রাখবেন কোনো ভাবেই যাতে তা মুখস্থ না শুনায়।
  • সম্ভাব্য কিছু প্রশ্নের উত্তর যা প্রায়শই সাক্ষাৎকারে এসে থাকে তাদের উত্তর আগে থেকে তৈরি করে নিন। সাক্ষাৎকারে আসা এই রকম কিছু পরিচিত প্রশ্ন হলো
    1. আপনার সম্পর্কে কিছু বলুন?
    2. আপনি পূর্বের চাকরিটি কেন ছেড়েছেন / কেন ছাড়তে চাচ্ছেন?
    3. এই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আপনি কি জানেন ?
    4. আপনার সামর্থ্য ও দুর্বলতাগুলো কি কি ?
    5. আপনি এই প্রতিষ্ঠানের জন্য কেন কাজ করতে চান ?
    6. এ যাবত কালে আপনার সব থেকে বড় অর্জন কি?
    7. আমরা কেন আপনাকেই নির্বাচন করবো ?
    8. আপনি কত টাকা বেতন প্রত্যাশা করছেন?
    9. আপনি যদি বস হতেন তাহলে আপনি এই প্রতিষ্ঠানের কোন বিষয়টি পরিবর্তন করতেন ?

সাক্ষাৎকারে যাবার পূর্বে

সাক্ষাতকারে যাবার আগে নিজেকে আয়নার সামনে আরো একবার দেখে নিন, দেখুন আপনার পোশাক ঠিক আছে কিনা,তাতে পেশাধারি মনোভাব ফুটে উঠেছে কিনা দেখে নিন আর আত্মবিশ্বাসের সাথে নিজেকে বলুন আমি পারব এবং দেখুন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়েছেন কিনা, যে সকল বিষয়গুলো অবশ্যই সংগে রাখতে হবে তা হল

  1. আপনার জীবন বৃত্তান্তের তিন থেকে চারটি প্রিন্টেট কপি
  2. দুটি কলম, পেন্সিল আর সাক্ষাৎকারের অনুষ্ঠিত হবার ঠিকানা
  3. নোট টুকে রাখার জন্য আলাদা কাগজ


পৌঁছানোর পর যা যা করবেন

  1. ১০ মিনিট আগে পৌঁছানোর চেষ্টা করুন, ট্রাফিক জ্যাম এড়ানোর জন্য এক ঘণ্টা হাতে রেখে রওনা দিন
  2. প্রতিটি প্রার্থীকে নিয়োগকর্তার কাছে তার যোগ্যতা ,দক্ষতার আর ব্যক্তিত্বের পরীক্ষা দিতে হয়, তাই সম্ভাব্য প্রশ্নগুলো আরো একবার যাচাই করে নিন যাতে নিজেকে সাবলীল, আত্মবিশ্বাসী ও গুছিয়ে নিয়োগকর্তাদের সামনে উপস্থাপন করতে পারেন
  3. বিশ্রামাগারে যেয়ে আপনাকে শেষ বারের মতো আরও একবার দেখে নিন
  4. নিয়োগকর্তাকে হাস্য-জ্বল অভিবাদন জানান, তাদের সাথে আত্মবিশ্বাসের সাথে হ্যান্ডশেক করুন এবং অনুমতি নিয়ে বসে পড়ুন
  5. আপনার চেহারার মাঝে আত্মবিশ্বাসের ছাপ বজায় রাখুন, নিয়োগকর্তাদের চোখের দিকে তাকিয়ে হাস্য-জ্বল অভিব্যক্তিতে কথা বলুন।

সাক্ষাৎকারের সময় যা করবেন

  1. আপনি যে সকল বিষয় গুলোর উপর প্রস্তুতি নিয়ে এসেছেন সেই সকল বিষয়গুলোর প্রতি গুরুত্ব দিন , তবে খেয়াল রাখবেন আপনার কথায় কোনো ভাবেই যেন প্রকাশ না পায় আপনি আগে উত্তরগুলো মুখস্থ করে এসেছেন, চেষ্টা করবেন অত্যন্ত সাবলীল ভাবে আত্মবিশ্বাস সাথে কথা বলতে
  2. শান্ত থাকুন আর কথোপকথনটি উপভোগ করুন, প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জেনে নিন যতটুকু জেনে নেয়া সম্ভব
  3. বিশ্রামাগারে যেয়ে আপনাকে শেষ বারের মতো আরও একবার দেখে নিন
  4. প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করুন , নিয়োগকর্তা আপনাকে কি বোঝাতে চাইছে তা বোঝার চেষ্টা করুন , অনেক সময় তা সরাসরি না হয়ে নিয়োগকর্তারা একটু ঘুরিয়ে বলে থাকেন, সেই বিষয়গুলো বোঝার চেষ্টা করুন।
  5. সাক্ষাৎকার পর্ব শেষ হলে সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীদের ধন্যবাদ জানান এবং পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে তা জেনে নিয়ে প্রস্থান করুন

সাক্ষাৎকার সব সময় অনিশ্চিত , আপনি বলতে পারবেন না আপনিই পারবেন , আপনিই জিতে আসবেন , অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় আপনার শত প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও এমন কিছু প্রশ্নের মুখোমুখি হয়েছেন যার উত্তর আপনাকে অনেক দুর্বল করে দিয়েছে, লক্ষ্য করবেন কোনো এক অজানা কারণে আপনার ভারী আত্মবিশ্বাসী গলা কেঁপে কেঁপে উঠেছে-প্রশ্ন বানের আঘাতে, অনেক সময় নিয়োগকর্তারা অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করতে শুরু করেন, যা আপনাকে স্নায়ুবিক ভাবে দুর্বল করে তুলতে পারে , কিন্তু মাথায় রাখবেন এই সকল অনিশ্চিত মুহূর্তগুলোর আবির্ভাবের অন্যতম কারণই হচ্ছে আপনাকে বাজিয়ে দেখা, আপনি কর্ম ক্ষেত্রে অনিশ্চিত মুহূর্তগুলোতে নিজেকে কিভাবে স্থির রাখবেন তা দেখা, তাই সাহস রাখুন, বিজয় আপনারই।
মনে রাখবেন, সাক্ষাৎকারে আসার অন্যতম কারণ যেমন আপনার একটি ভালো চাকরি পাওয়া ঠিক তেমনি সাক্ষাৎকারটি আয়োজনের ও মূল কারণ হচ্ছে তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য একজন যোগ্য কর্মী খুঁজে বের করা,তাই সব সময় মনে রাখবেন, নিয়োগ কর্তারা যাই করুক না কেন তার পিছনের উদ্দেশ্য আপনাকে বাজিয়ে দেখা আপনাকে বাদ দেয়া নয় , তাই তারা প্রতি ক্ষেত্রে আপনার কাছে প্রমাণ চাইবে, আপনাকে জানার, আপনাকে বোঝার । আর তার জন্যই প্রতি মুহূর্তেই আপনাকে প্রমাণ করে যেতে হবে, নিজেকে প্রমাণ করার মানসিকতায় লেগে থাকতে হবে সাক্ষাৎকারের শেষ অবধি।
মনে রাখবেন আপনাকে যাচাই করাই হলো নিয়োগকর্তাদের অন্যতম কাজ, তাই এই যাচাইটা আরো একটু বাজিয়ে দেখতে তারা হয়তো আপনার সাথে অনেক রুক্ষ হতে পারে, হয়তো আপনাকে প্রশ্নের উত্তর দেয়ার সুযোগ না দিয়েই আরো একটি প্রশ্নের অবতারণা করতে পারে, যার উদ্দেশ্য হলো আপনি চাপের মুখে কাজ করতে পারবেন কিনা তা দেখা। তাই লক্ষ্য হারাবেন না, সাহস তো নয়ই, নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস রেখে প্রশ্নের উত্তর দিন, তাহলেই জয় আপনার।

Search jobs by